সাংবাদিককে হুমকি, নোবেলের বিরুদ্ধে থানায় জিডি

বিনোদন ডেস্ক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১১:৫১ AM, ১৮ মে ২০২১

সময় টেলিভিশনের বিনোদন বিভাগের সাংবাদিক আল কাছিরকে অপহরণের হুমকি দেওয়ায় আলোচিত-সমালোচিত গায়ক নোবেলের বিরুদ্ধে থানায় জিডি (সাধারণ ডায়েরি) করা হয়েছে। ১৭ মে (সোমবার) দুপুর ৩টা ৩০ মিনিটের দিকে রাজধানীর কলাবাগান থানায় জিডিটি করা হয়। যার নাম্বার ৭০৩।

ডায়েরিতে উল্লেখ করা হয়, ভারতের জি বাংলার রিয়েলিটি শো থেকে আলোচনায় আসে মাইনুল আহসান নোবেল, পিতা: মোজাফফর হোসেন নান্নু, বর্তমান ঠিকানা: বাসা-৫০ (রোজ গার্ডেন), সড়ক-৩, ব্লক-ডি, মহানগর প্রজেক্ট, ঢাকা। পরিচিতি পাওয়ার পর একাধিক বিতর্কের সঙ্গে নিজেকে জড়িয়েছেন। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত, দেশের স্বনামধন্য সঙ্গীতশিল্পীদের নিয়ে বিভিন্ন সময় নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুকে (Noble Man) আপত্তিকর স্ট্যাটাস দিয়েছেন। সম্প্রতি নগরবাউল জেমস, জনপ্রিয় সুরকার ইথুন বাবু এবং সঙ্গীতশিল্পী তাপসকে নিয়েও কূরুচিপূর্ণ স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন। সবশেষ নোবেল তার ফেসুবকে নিজের মৃত্যু তারিখ ঘোষণা করে স্ট্যাটাস দেন। পেশাগত দায়িত্ব হিসেবে সময় টিভির নিজস্ব প্রতিবেদক আল কাছির বিষয়টি নিয়ে নোবেলের সঙ্গে কথা বলার প্রয়োজন মনে করেন।

কলাবাগান থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) পরিতোষ চন্দ্র বলেন, আজ বিকেলে সময় টিভির প্রশাসন ও পরিচালনা বিভাগের জ্যেষ্ঠ নির্বাহী সৈয়দ আসাদুজ্জামান থানায় কণ্ঠশিল্পী নোবেলের বিরুদ্ধে একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। নোবেলের একটি বিতর্কিত ফেসবুক স্ট্যাটাসকে কেন্দ্র করে সময় টিভির একজন রিপোর্টার তার সঙ্গে যোগাযোগ করলে সে তাকে অকথ্য ভাষায় গালাগালিসহ হুমকি দেয় বলে সৈয়দ আসাদুজ্জামান ডায়রিতে উল্লেখ করেন। আমরা বিষয়টি তদন্ত করে দেখছি।

রোববার (১৭ মে) দিবাগত রাত ১২ টা ৪৫ মিনিটে নোবেলের ব্যক্তিগত নাম্বারে ফোন করেন তিনি। পরিচয় পাওয়ার পর নোবেল অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে ফোন কেটে দেন। তারপর ১২টা ৪৮ মিনিটে নোবেল নিজেই প্রতিবেদক আল কাছিরকে একটি নাম্বার থেকে ফোন করে অপ্রকাশযোগ্য ভাষায় গালাগালি করেন এবং তাকে জেলে নেয়ার হুমকি প্রদান করেন।

সময় টেলিভিশনকে নিয়েও আপত্তিকর, কূরুচিপূর্ণ এবং অশ্লীল ভাষায় গালাগালিও করেন এই গায়ক। এ সময় তিনি প্রথম আলো, চ্যানেল ২৪ সহ দশ সাংবাদিককে জেলে নেওয়ার হুমকিও দেন।

এদিকে নোবেল সাংবাদিককে হুমকির ঘটনায় প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতি (বাচসাস), ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি সাংবাদিক সমিতি (ডিআইইউসাস), গণবিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি (গবিসাস)। আলাদা বিৃবতির মাধ্যমে তারা নোবেলের শাস্তি দাবি করেছেন।

আপনার মতামত লিখুন :