বিভাগীয় রেলওয়ে ম্যানেজার লালমনিরহাট এর কঠোর নির্দেশনায় ২২ জুলাই লালমনি / ৭৫২ ট্রেনে প্রায় ৪ লক্ষ টাকা আয় চুরি প্রতিরোধ

নিজস্ব প্রতিবেদক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৭:২৪ PM, ২৫ জুলাই ২০২১

গত ২২ জুলাই /২১ লালমনিরহাট থেকে ঢাকার উদ্দেশ্য ছেড়ে যাওয়া লালমনি/ ৭৫২ এক্সপ্রেস ট্রেনে প্রচন্ড যাত্রীচাপে স্বাস্থ্য বিধির হযবরল অবস্থা। স্বাস্থ্য বিধি মেনে ট্রেন চলাচল এর নির্দেশ থাকলেও তা নিয়ন্ত্রণ করতে পারেনি রেল কতৃপক্ষ। তবে বিভাগীয় রেলওয়ে ম্যানেজার লালমনিরহাট এর কঠোর নির্দেশের কারণে রেলওয়ের আয় চুরি করে ট্রেনে যাত্রা করার কোন সুযোগ পায়নি বিনা টিকেটের ৯০% যাত্রী। গুঞ্জন রয়েছে ১০% বিনা টিকেটের যাত্রী রেলওয়ে জিআরপির সদস্যদের ম্যানেজ করে যাত্রা করেছেন। অন্যদিকে ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে টিকিট ধারী যাত্রীদের। বিনা টিকেটের যাত্রীরা ঢাকার উদ্দেশ্য ছেড়ে আসা লালমনিরহাট থেকে লালমনি এক্সপ্রেসে যেখান থেকেই উঠুক না কেন গুনতে হয়েছে জরিমানা সহ ১০১০ টাকা ভাড়া। টিকিট কেটে উঠা যাত্রীদের পাশে শূন্য আসনে তাদের বসার সুযোগ করে দেয়া হয়েছে। যদিও আসনটি শূন্য রেখেই ট্রেন চলাচল করার কঠোর নির্দেশন ছিল। এভাবেই করোনা আত্রুান্ত হওয়ার ঝুঁকি নিয়েই হাজার হাজার মানুষ ঈদ শেষে ট্রেন যোগে ঢাকায় ফিরেন।ট্রেনের আসন সংখ্যার হিসাব এবং দাড়ানো যাত্রীর চাপ অনুযায়ী সেদিন, বিনা টিকেটের যাত্রী থেকে ট্রেনে দায়িত্বরত টিটিই গন বাড়তি ভাড়ার টিকিট কেটে প্রায় ৪ লক্ষ টাকার মত রেলওয়ের আয় চুরি প্রতিরোধ করে। পাশাপাশি রেলওয়ে জিআরপি সহ কিছু স্টাফ প্রায় ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা রেলওয়ের আয় চুরি করেছেন বলে ট্রেনে গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে। সে দিনের মত যদি প্রতিদিন কঠোর ভাবে আয় চুরি প্রতিরোধ করা যায় তাহলে ট্রেনে কেউ বিনা টিকেটে যাত্রা করার সুযোগ পাবে না। বিভাগীয় রেলওয়ে ম্যানেজার লালমনিরহাট এর কঠোর নির্দেশনা আর দায়িত্বরত টিটিই সহ অন্যনা সকল স্টাফের এ রকম দায়িত্বশীল কর্মকান্ড সত্যিই প্রশংসনীয়। সে দিন রেলওয়ের কি পরিমান আয় হয়েছিল তা নিশ্চিত হতে লালমনিরহাট ডিটিএস এবং পাকশী ডিটিও সাহেবকে ফোন করলে তারা ফোন রিসিভ করেনি। করোনা সহসাই বিদায় হচ্ছে না, তাই সকলকে স্বাস্থ্য বিধি মেনে যাত্রা এবং চলাচল করা উচিত।

আপনার মতামত লিখুন :