বিকল ইঞ্জিনে থেমে আছে স্বপ্নের ডেমু ট্রেন

নিজস্ব প্রতিবেদক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১১:৪১ AM, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

রেলওয়ে সেবার মানোন্নয়নে দেশে যাত্রা শুরু হয়েছিল ডেমু ট্রেনের। ২০১৩ সালে পার্বতীপুর-পঞ্চগড় ও পার্বতীপুর-লালমনিরহাট রুটে ডেমু ট্রেন চলাচল শুরু হয়। যাত্রীসেবার পাশাপাশি ট্রেন দুটি থেকে প্রতি মাসে লক্ষাধিক টাকা রাজস্ব আয় হতো। কিন্তু নানা সমস্যায় জর্জরিত হয়ে দেড় বছরের বেশি সময় ধরে বিকল হয়ে আছে ডেমু ট্রেন দুটি।

জানা যায়, সান্তাহার হয়ে পঞ্চগড়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম স্টেশনে চলাচলকারী উত্তরবঙ্গ মেইল (সেভেন আপ এইট ডাউন) ও পার্বতীপুর-কুড়িগ্রাম রুটে চলাচলকারী রমনা ট্রেনটি বন্ধ আছে।

স্থানীয়রা জানিয়েছে, শুরুর দিকে এ অঞ্চলের মানুষ ডেমু ট্রেন দুটির সুবিধা ভোগ করলেও যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে দীর্ঘ দিন বন্ধ রয়েছে। ফলে ভোগান্তি বেড়েছে এ রুটে যাতায়াতকারী যাত্রীদের। এমনকি নির্ধারিত গন্তেব্যে যাওয়ার মাঝপথে ইঞ্জিন বিকল হওয়ারও ঘটনা ঘটেছে। ফলে কাজে আসছে না সরকারের কোটি টাকা ব্যয়ে কেনা ডেমু ট্রেন দুটি।

বাংলাদেশ রেলওয়ের পার্বতীপুর লোকোশেড অফিস সূত্রে জানা গেছে, ২০১৩ সালে তৎকালীন রেলমন্ত্রী মুজিবুল হকের উদ্বোধনের মধ্যদিয়ে দিনাজপুরের পার্বতীপুর থেকে পঞ্চগড়ের বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম রেলস্টেশন ও লালমনিরহাটে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে ডেমু ট্রেন দুটি। প্রথম দিকে আধুনিক সুবিধা সম্পন্ন ট্রেন দুটি ভালোভাবে যাত্রী পরিবহনে সক্ষম হলেও বিভিন্ন কারণে এখন পড়ে আছে পার্বতীপুর লোকোশেডে।

দেশে যতগুলো ডেমু ট্রেন রয়েছে এর মধ্যে শুরুর দিকে শুধু পশ্চিম জোনের এ দুটি ট্রেন থেকে সরকার মাসে সর্বাধিক রাজস্ব পেতো। তবে দীর্ঘ দিন ধরে যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে ডেমু ট্রেন দুটি পার্বতীপুর ডিজেলশপে ওভারহালিংয়ের জন্য রাখা হয়েছে।ট্রেনের অন্যান্য কাজের অংশ হিসেবে হাইড্রোলিক সিস্টেম, ব্রেকিং, কুলিং ও ফিটিং সিস্টেমের কাজ করছেন লোকোশেডের কর্মচারীরা।

পার্বতীপুর রেলওয়ে জংশন স্টেশনের মাস্টার শওকত আলী  বলেন পার্বতীপুর থেকে বিভিন্ন রুটে ৬৮টি ট্রেন চলাচল করে। করোনার কারণে সাময়িক ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকলেও এখন ডেমুসহ ২-৩টি ট্রেন ছাড়া সকল ট্রেন চালু রয়েছে।

দিনাজপুর রেলওয়ের স্টেশন সুপারিনটেনডেন্ট এবিএম জিয়াউর রহমান  বলেন, দিনাজপুর স্টেশনের ওপর দিয়ে চলাচলকারী ডেমু ও সেভেন আপ এইট ডাউন ট্রেনটি করোনার পর চালু হয়নি। এই দুটি ট্রেন দিয়ে প্রতিদিন কয়েকশ যাত্রী চলাচল করত। এটা চালু না হওয়ায় কম দূরত্বের যাত্রীদের ভোগান্তি বেড়েছে।

বাংলাদেশ রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চলের বিভাগীয় ব্যবস্থাপক (লালমনিরহাট) নুর মোহাম্মদ মুঠোফোনে বলেন, যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে ডেমু ট্রেন দুটি বন্ধ আছে। তা ছাড়া বেশ কিছু সমস্যার কারণে আরও কয়েকটি ট্রেন বন্ধ আছে। এরপর তিনি মিটিং আছে বলে ফোনের লাইন কেটে দেন।

আপনার মতামত লিখুন :