ঢাকা ২৭ নভেম্বর, ২০২২
সংবাদ শিরোনাম
দেশের জনগণের প্রতি দায়িত্ববোধ থাকতে হবে করোনায় মৃত্যু হাজারের কাছাকাছি, শনাক্ত আরও ৪ লাখ ২৩ জেলায় নতুন ডিসি ধ্বংসস্তূপের নিচ থেকে দুইদিন পর জীবিত শিশু উদ্ধার বুবলীকে ডায়মন্ডের নাকফুল উপহার দেইনি: শাকিব খান সার্বিয়ার বিপক্ষে কোন কৌশলে লড়বে ব্রাজিল দলে দলে সমাবেশে যোগ দিচ্ছেন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী হওয়ার দ্বারপ্রান্তে আনোয়ার ইব্রাহিম যশোরে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী, যোগ দিয়েছেন বিমানবাহিনীর অনুষ্ঠানে পোল্যান্ড-মেক্সিকোর ড্রয়ে কি সুবিধা নাকি ক্ষতি হলো আর্জেন্টিনার?

বিলুপ্তির পথে গ্রাম বাংলার লাঠি খেলা

#

নিজস্ব প্রতিবেদক

২২ নভেম্বর, ২০২২,  11:22 AM

news image

গ্রাম বাংলায় এক সময় খুব জনপ্রিয় খেলা ছিল লাঠি খেলা। কিন্তু বর্তমানে কালের বির্বতনে মানুষ ভুলতে বসেছে এসব লাঠি খেলা ও বিনোদন থেকে।এক গবেষণায় জানা গেছে বর্তমানে লাঠি খেলার নতুন করে কোন সংগঠন বা দল তৈরি না হওয়ায় হারিয়ে যেতে বসেছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী লাঠি খেলা।ঢোল আর লাঠির তালে তালে নাচা-নাচি, অন্য দিকে প্রতিপক্ষের হাত থেকে আত্মরক্ষার কৌশল অবলম্বনের প্রচেষ্টা সম্বলিত টান টান উত্তেজনার একটি খেলার নাম লাঠি খেলা।

এই খেলার জন্য লাঠি সাড়ে চার থেকে পাঁচ ফুট লম্বা হয়। তবে প্রতিটি লাঠিই হয় প্রায় তৈলাক্ত। প্রত্যেক খেলোয়ার তাদের নিজ নিজ লাঠি দিয়ে রণকৌশল প্রদর্শন করে।
এই খেলায় শিশু থেকে শুরু করে যুবক ও বৃদ্ধ পুরুষেরাই লাঠি খেলায় অংশ নিয়ে থাকেন। লাঠিখেলার আসরে লাঠির পাশাপাশি যন্ত্র হিসেবে ঢোল, কর্নেট, ঝুনঝুনি ও বিভিন্ন  প্রকার বাঁশি ব্যবহার হয়ে থাকে। এছাড়া সঙ্গীতের পাশাপাশি এ খেলার সাথে চুড়ি নৃত্য দেখানো হয়।

সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ উপজেলার রবিউল আউয়াল বলেন, গ্রামবাংলার ঐতিহ্যবাহী লাঠি খেলা আজ বিলুপ্ত প্রায়। আমাদের অঞ্চলে বিভিন্ন ধরনের লাঠি খেলা রয়েছে। আগে দেখতাম গ্রামের সাধারণ মানুষেরা বাংলা বর্ষবরণ, বিবাহ, চড়ক পূজা, মুসলমানি/ সুন্নেতে খাৎনা ইত্যাদি উপলক্ষে লাঠি খেলার আয়োজন করতেন।

সচেতন মহল বলছেন,খেলাটি দিন দিন বিলুপ্তি হওয়ার কারণে এর খেলোয়ার সংখ্যাও কমে যাচ্ছে। তৈরি হচ্ছে না কোন নতুন খেলোয়ার। আর পুরনো অভিজ্ঞ খেলোয়াড়রা অর্থাভাবে প্রসার ঘটাতে পারছেন না এ খেলায়।
বৃক্ষ প্রেমি মাহবুব পলাশ এ প্রতিবেদক কে বলেন, এসব খেলার মাধ্যমে বিনোদন পেলে তরুনেরা মাদক ছেড়ে এই বিনোদনে আগ্রহী হতো। তাই ঐতিহ্যবাহী বিনোদনের খোরাক জোগানোর জন্য এই লাঠি খেলা ধরে রাখতে সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করছি।

logo
সম্পাদক ও প্রকাশক মো: মনিরুজ্জামান মনির